সদ্য প্রাপ্ত

যশোর বাসের ধাক্কায় কলেজ ছাত্রী নিহত

Spread the love

যশোর প্রতিনিধিঃ যশোরে রিমা খাতুন (২২) নামে এক তরুণী বাসের ধাক্কায় নিহত হয়েছেন। তিনি যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী।

তার বাবার অভিযোগ, রিমার প্রেমিক তাকে চলন্ত বাসের সামনে ধাক্কা দিয়ে খুন করেছে। রাব্বি নামে কথিত ওই প্রেমিক একজন পুলিশ সদস্য বলে জানানো হয়েছে। ঘটনার পর রাব্বিকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। তবে প্রত্যক্ষদর্শীরা এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন। থানা পুলিশও বলছে, এটি নিছকই দুর্ঘটনা। রিমা যশোর সদর উপজেলার দেয়াড়া ইউনিয়নের ফরিদপুর গ্রামের কেরামত আলীর মেয়ে।

কেরামত আলী বলেন,মোবাইলের মাধ্যমে চৌগাছা উপজেলার ফুলসারা ইউনিয়নের আইয়ুব সর্দারের ছেলে পুলিশ সদস্য রাব্বির সঙ্গে রিমার পরিচয় হয়। আজ সকালে রিমা তার সঙ্গে দেখা করবে বলে বাড়ি থেকে বের হয়। বিকেল তিনটার দিকে আজ বাড়িতে আসবে না বলে মোবাইলে তার মাকে জানিয়ে দেয় রিমা।

সন্ধ্যা সাড়ে পাঁচটার দিকে খবর পেয়ে হাসপাতালে এসে রিমার লাশ দেখতে পাই। আমি জানতে পেরেছি, জেস গার্ডেন থেকে বের হয়ে মোটরসাইকেলযোগে রিমা ও রাব্বি শহরের দিকে আসছিল। বাহাদুরপুরে পৌঁছুলে রাব্বি তাকে ধাক্কা দিয়ে চলন্ত বাসের সামনে ফেলে দেয়। বাসের সঙ্গে ধাক্কা লেগে সে ছিটকে পড়ে। এতে সে মাথায় গুরুতর আঘাত পায়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার কল্লোলকুমার সাহা সন্ধ্যা পাঁচটা ৪০ মিনিটে রিমাকে মৃত ঘোষণা করেন।তিনি বলেন, হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই রিমার মৃত্যু হয়েছে। বাসের ধাক্কায় তার মাথা ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে।
এদিকে হাসপাতালে আসা রিমার স্বজনরা জানান, তিনি রাব্বির সঙ্গে  বাহাদুরপুর জেস গার্ডেনে বেড়াতে গিয়েছিলেন।  সেখান থেকে রাব্বির মোটরসাইকেলে চেপে ফেরার পথে ঘটনা বা দুর্ঘটনাটি ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, রিমা মোটরসাইকেল থেকে রাস্তার ওপর পড়ে যান। ওই সময় সাউদিয়া পরিবহনের একটি বাস তাকে ধাক্কা দিয়ে দ্রুতগতিতে চলে যায়।

জানতে চাইলে যশোর কোতয়ালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল বাশার মিয়া বলেন, শুনেছি একটি বাস মাগুরার দিকে থেকে আসছিল। বাহাদুরপুর স্কুলের সামনে বাসটি একটি মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেয়। সে সময় রিমা নামে একটি মেয়ে মোটরসাইকেল থেকে রাস্তায় পড়ে আহত হন। পরে হাসপাতালে মারা যান তিনি।
মোটরসাইকেলটির মালিক রিমার কথিত প্রেমিক রাব্বি পুলিশ সদস্য কি-না তা জানা নেই বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তা বাশার।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ