সদ্য প্রাপ্ত

১০০ বছর মেয়াদি ‘ডেল্টা প্ল্যান’ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

Spread the love

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানিয়েছেন, ১২টি দেশের সহযোগিতায় বাংলাদেশে এক শ বছর মেয়াদি ‘ডেল্টা প্ল্যান’ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। আজ শনিবার রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে আন্তর্জাতিক ‘ঢাকা পানি সম্মেলন ২০১৭’ এ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দীর্ঘমেয়াদি সমন্বিত পানি ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনায় আগামী এক শ বছর মেয়াদি ‘বাংলাদেশ ডেল্টা প্ল্যান ২১০০’ নামে একটি যুগান্তকারী উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। যাতে এক শ বছরে পানির প্রাপ্যতা, তার ব্যবহার এবং প্রতিবেশগত বিষয়সমূহ বিবেচনায় রাখা হয়েছে।

এ পরিকল্পনায় ভূ-প্রাকৃতিক বৈচিত্র্য ও পানির বৈশিষ্ট্যের ভিন্নতা বিবেচনায় নিয়ে বাংলাদেশকে ছয়টি ভাগে ভাগ করা হয়েছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, এতে সমতল, পাহাড় ও উপকূলীয় এলাকাকে ভিন্ন ভিন্ন পরিকল্পনার আওতায় নেওয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আর্সেনিক ও লবণাক্ততা, ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর হ্রাস, ভূ-উপরিস্থ পানি সংরক্ষণের অপ্রতুলতা, পানির অপচয় এবং শিল্প বর্জ্যসহ নানা কারণে পানি দূষণ, বাংলাদেশে পানির ব্যবহার ও ব্যবস্থাপনায় মূল সমস্যা। তিনি আরো বলেন, এসব সমস্যা মোকাবিলা করতে আমরা স্বল্প, মধ্য এবং দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছি।

জলবায়ুর বিরূপ প্রভাবে পানি ব্যবস্থাপনায় ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর জন্য নিরাপদ পানি ও স্যানিটেশন বিষয়ে পৃথক তহবিল গঠনের দাবির কথা আবারো উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গোটা বিশ্বে এ মুহূর্তে ২৪০ কোটি মানুষ স্যানিটেশন সুবিধা থেকে বঞ্চিত। এ ছাড়া নিরাপদ পানির অভাবে পৃথিবীতে বছরে ১০ লাখ মানুষ মারা যান, যাদের অধিকাংশই শিশু। প্রতিদিন গড়ে বিশ্বে এক হাজার শিশু বিশুদ্ধ পানির অভাবে প্রাণ হারায়।

পৃথিবীর শতকরা ৯০ ভাগ বিপর্যয়ের জন্য পানিকে দায়ী করে শেখ হাসিনা বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগে মৃত্যুর শতকরা ৭০ ভাগই সংঘটিত হয় বন্যা এবং অন্যান্য পানিসংক্রান্ত দুর্যোগে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশুদ্ধ খাবার পানি শুধু আমাদের বেঁচে থাকার জন্যই নয়, সব প্রাণিকূলেরও বেঁচে থাকার জন্য অপরিহার্য। তিনি আরো বলেন, বিশ্বে শতকরা ১ ভাগেরও কম পানিসম্পদ পান করার জন্য নিরাপদ বলে বিবেচনা করা হয়। ফলে এখন পর্যন্ত বিশ্বের প্রায় ১০০ কোটি মানুষের সুপেয় পানির প্রাপ্যতা নিশ্চিত করা যায়নি।

তিনি বলেন, বিশ্বের প্রায় এক শ সাত কোটিরও বেশি মানুষ নদী অববাহিকায় বসবাস করে।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ