দুদক কর্মকর্তা সেজে চাঁদাবাজি, গ্রেপ্তার ১

Spread the love

।। নিজস্ব প্রতিবেদক।।

ঢাকা ক্রাইম ডটকম : মোবাইল ফোনে দুদকের তদন্তকারী পরিচয়ে ভয়-ভীতি দেখিয়ে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে মোহাম্মদ ফয়েজ উদ্দীন ওরফে ফয়সল রানা নামের এক প্রতারককে গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর গুলিস্তানের হোটেল রাজধানীর সামনে থেকে দুদক পরিচালক মীর জয়নুল আবেদিন শিবলীর নেতৃত্বে সাত সদস্যের একটি টিম তাকে চাঁদাসহ গ্রেপ্তার করেছে।

রাজধানীর পল্টন থানায় ভুক্তভোগী আব্দুল জলিল বাদি তাকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন। জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য এ তথ্য  নিশ্চিত করেছেন।

ফয়সল রানা সাংবাদিকদের কাছে নিজেকে মোহাম্মদ ফয়জুল বলে দাবি করেছেন। বাড়ি চট্টগ্রামের চন্দনাইশ।

মামলার এজহার সূত্রে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার খাগকান্দা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মো. আব্দুল জলিলের কাছে ফয়সল রানা নিজেকে দুদক কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে তার বিরুদ্ধে দুদকে উত্থাপিত অভিযোগ হতে রেহাই পেতে হলে সাত লাখ টাকা দাবি করেন। তা না হলে ফয়সল রানা আব্দুল জলিলের মামলার চার্জশিট দিবে। এতে মো. আব্দুল জলিল চাকরি হারাবেন।

দুদক জানায়, ভূমি সহকারী কর্মকর্তা চাকরি হারানোর ভয়ে ভীত হয়ে দুদকের কথিত তদন্তকারী কর্মকর্তা ফয়সল রানাকে প্রথমে ২ লাখ টাকা দুই থেকে তিন মাস পূর্বে সরাসরি প্রদান করেন। কিছুদিন পর আরো ২০ হাজার টাকা বিকাশের মাধ্যমে প্রদান করেন। সর্বশেষ দুদকের ভুয়া তদন্তকারী কর্মকর্তা ফয়সল রানা মো. আব্দুল জলিলের নিকট পুনরায় বাকি ৫ লাখ টাকা দাবি করলে একইভাবে ফয়সলের আরেক সহযোগী দুদকের ভুয়া ইন্সপেক্টর সোহেলকেও দুই কিস্তিতে ৩৫ হাজার টাকা ও ১ লাখ ৫০ হাজার টাকাসহ মোট ১ লাখ ৮৫ হাজার টাকা দেন। ভুয়া ইন্সপেক্টর স্বপনের বাড়ি রূপগঞ্জের গাওছিয়া এলাকায়।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ