ব্রিটিশ রিটেইল কনসোর্টিয়াম (বিআরসি) সনদ পেলো প্রাণ

Spread the love

।। নিজস্ব প্রতিবেদক।।

ঢাকা ক্রাইম ডটকম: বাংলাদেশের জনপ্রিয় পণ্য উৎপদানকারী প্রতিষ্ঠান প্রাণ গ্রুপকে ‘ব্রিটিশ রিটেইল কনসোর্টিয়াম (বিআরসি) সনদ প্রদান করেছে যুক্তরাজ্য ভিত্তিক মান নিয়ন্ত্রণ সংস্থা বিআরসি সার্টিফিকেশন বডি।

উৎপাদিত পণ্যের গুনগতমান, খাদ্য নিরাপত্তা, উৎপাদনে প্রতিটি ধাপে কমপ্লায়েন্স ও বাজারজাতকরণে মান রক্ষার সঠিক পদ্ধতি অনুসরণ করায় এ সনদ পেলো প্রাণ।

মৌখিক স্বীকৃতির পর গত সেপ্টেম্বরের ২৭ তারিখে আনুষ্ঠানিক সনদ প্রদান করেছে ‘বিআরসি সার্টিফিকেশন বডি’।

ভারত, পাকিস্তানসহ আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে খাদ্যপন্য সামগ্রী রফতানি করে আসছে বাংলাদেশের জনপ্রিয় প্রতিষ্ঠান প্রাণ গ্রুপ। পাশাপাশি ইউরোপের বাজারেও প্রাণের উৎপাদিত পন্য সামগ্রী রফতানি হচ্ছিল। যুক্তরাজ্যভিত্তিক মান নিয়ন্ত্রণ সংস্থা বিআরসি সার্টিফিকেশন বডি কর্তৃক ‘ব্রিটিশ রিটেইল কনসোর্টিয়াম(বিআরসি) সনদকে ইউরোপে খাদ্যপণ্য রফতানিতে বড় স্বীকৃতি, বলছেন প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় প্রগতি স্মরনীর মেরুল বাড্ডাস্থ প্রাণ গ্রুপের প্রধান কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সেখানে প্রাণ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইলিয়াছ মৃধা বলেন, প্রাণ গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান প্রাণ এগ্রো লিমিটেড, নাটোর এগ্রা লিমিটেডকে আন্তর্জাতিক মান ও কমপ্লায়েন্স মেনে পণ্য উৎপাদন করা করায় ‘ব্রিটিশ রিটেইল কনসোর্টিয়াম (বিআরসি) সনদ প্রদান করেছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক মান নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিআরসি সার্টিফিকেশন বডি।

তিনি বলেন, বিআরসি সার্টিফিকেট হলো বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত একটি সনদ, যার মাধ্যমে একটি প্রতিষ্ঠানের উৎপাদিত পণ্যের গুনগতমান, খাদ্য নিরাপত্তা ও উৎপাদনে প্রতিটি ধাপে কমপ্লায়েন্স মেনে চলার বিষয়টি নির্দেশ করে। ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে পণ্য রফতানির ক্ষেত্রে বিআরসি সনদকে অধিক গুরুত্ব দেয়া হয়।

ইলিয়াছ মৃধা বলেন, প্রাণ গ্রুপের দুটি প্রতিষ্ঠানের অধীনে গুড়া মশলা, প্রাণ সরিষার তেল, মিস্টার নুডলস, প্রাণ সস’সহ বেশ কয়েকটি পণ্য এই সনদ অর্জন করেছে। এর ফলে ইউরোপ ও আমেরিকায় খুব সহজেই গ্রাণের এসব পণ্য পৌঁছে দেয়া সম্ভব হবে। ইউরোপ আমেরিকার বড় বড় আউটলেট ও সুপারসপগুলোতে প্রাণের পণ্য সহজেই মিলবে।

তিনি বলেন, প্রাণ সবসময় পণ্য উৎপাদনের প্রতিটি ধাপে গুনগত মান বজায় রেখে ভোক্তার কাছে সেরা পণ্যটি পৌঁছে দিতে চেষ্টা করে। এই বিআরসি সনদ অর্জনের মাধ্যমে ভোক্তার প্রতি আমাদের দায়বদ্ধতাকে আরেকবার প্রমাণ করলো।

বাংলাদেশ থেকে মশলা ক্যাটাগরিতে প্রাণ গুঁড়া মশলা সর্বোচ্চ পরিমাণ রফতানি হয়ে থাকে উল্লেখ করে ইলিয়াছ মৃধা বলেন, বর্তমানে প্রাণের গুড়া মশলা একশো’টির বেশি দেশে রফতানি হচ্ছে। এতো দিন বিআরসি সনদ না থাকায় ইউরোপের বাজারে আমাদের পণ্য রফতানিতে নানা প্রতিবন্ধকতার সম্মুখিন হতে হয়েছে। এই সনদ অর্জনের ফলে বিশ্বের নানা প্রান্তে বাংলাদেশী ব্র্যান্ডের মশলা পৌছে দিতে পারবো।

দেশের বাইরে প্রাণ গ্রুপ পণ্যসামগ্রী রফতানির মাধ্যমে দেশকে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে কাজ করে যাচ্ছে। এই সনদপ্রাপ্তি শুধুমাত্র প্রাণ গ্রুপের নয় দেশের জন্য সম্মানের। ইউরোপে পণ্য সামগ্রী রফতানিতে আর প্রতিবন্ধকতা থাকছে না। এতে করে দেশে আরও বেশি পণ্য সামগ্রী উৎপাদন বাড়বে। কৃষকরা আরও বেশি লাভবান হবেন। আমরা আরও বেশি কৃষকদের পণ্য ক্রয় করবো।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, প্রাণ গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান প্রাণ এগ্রো লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক শেখ সাজ্জাদ হোসেন, নাটোর এগ্রো লিমিটেডের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার তানভীর হাসান, মিস্টা নুডলস এর হেড অব মার্কেটিং তোষন পাল এবং প্রাণ গুড়া মশলা’র ব্র্যান্ড ম্যানেজার মাহামুদুল হাসান।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ