নাটোরে স্বামীর লাশবাহী গাড়ী থেকে স্ত্রী উধাও !

Spread the love
নিজস্ব প্রতিবেদক: নাটোরের গুরুদাসপুরে স্বামীর লাশবাহী গাড়ী থেকে স্ত্রী উধাও হয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। স্ত্রীর নাম শ্যামলী খাতুন এবং মৃত স্বামীর নাম আরিফুল ইসলাম (২২)। লাশবাহী গাড়ী থেকে মৃত স্বামীকে রেখে তিনি পালিয়ে তার পিতার বাড়ীতে চলে যান।
১৬ আগস্ট বৃহস্পতিবার রাতে নাজিরপুর ইউনিয়নের বেগঙ্গারামপুর গ্রামে এই ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনার পর থেকে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। নিহতের পরিবারের দাবী এক বছর পূর্বে পারিবারিকভাবে আরিফুল ও শ্যামলীর বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই শ্যামলীর সাথে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজনের ঝগড়াবিবাদ লেগেই থাকত। একপর্যায়ে স্বামী আরিফুলকে বুঝিয়ে গাজীপুরে গিয়ে দুইজনই গার্মেন্টসে চাকরি নেয়।
বৃহস্পতিবার সকালে কালিয়াকৈর থানা এলাকার ভাড়া বাসা থেকে আরিফুলের ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে থানা পুলিশ। ময়না তদন্ত শেষে মৃতদেহ তার স্ত্রী শ্যামলীর কাছে হস্তান্তর করা হয়। শ্যামলী লাশবাহী গাড়ীতে করে স্বামীকে এলাকায় নিয়ে আসেন। তবে তার স্বামীর বাড়ী থেকে আধা কিলোমিটার দূরে গাড়ীতে মৃতদেহ রেখেই পালিয়ে যায় শ্যামলী। পরবর্তীতে স্থানীয়রা মৃতদেহটি আরিফুলের বাড়ী নিয়ে যায়।
আরিফুলের পিতা সাইদুল ইসলাম লালু জানান, তার ছেলের মৃতদেহ গাড়ীতে রেখেই বউয়ের পালিয়ে যাওয়ায় এটি হত্যা না আত্মহত্যা তা নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে।
গাজীপুরের কালিয়াকৈর থানার এসআই নায়েবুল ইসলাম জানান, মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত শেষে আরিফুলের মৃতদেহ তার স্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ময়না তদন্ত রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা সম্ভব নয়। প্রাথমিকভাবে এ বিষয়ে অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানান তিনি।
Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ