স্বামীর বিরুদ্ধে ভরণ-পোষণ না দিয়ে নির্যাতনের অভিযোগ স্ত্রীর

Spread the love
নিজস্ব প্রতিনিধি, ঢাকা ক্রাইম ডটকম: প্রথম স্ত্রীর অনুমোতি না নিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করা এবং স্ত্রীকে ভরণ-পোষণ না দিয়ে স্বামীর বিরুদ্ধে নির্যাতন চালানোর অভিযোগ করেছেন স্ত্রী। এছাড়াও ভুয়া পাসপোর্ট ও ভিসা দেখিয়ে ভুক্তভোগীর স্বামী সেনা সদস্য মো. আজাহারুল ইসলাম নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা থেকে জামিন পেয়েছেন বলেও অভিযোগ করেছেন তিনি।
১৮ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সকালে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন (ক্র্যাব) কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী স্ত্রী ফাতেমা আক্তার। এ সময় তার আত্মীয়-স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন।
লিখিত বক্তব্যে ফাতেমা আক্তার জানান, গত ২০০৯ সালের ২১ সেপ্টেম্বর সেনাবাহিনীতে কর্মরত এসএমটি সৈনিক মো. আজাহারুল ইসলামের (ব্যাচ নং-৫৬, সেনা নং-২২০৫৫৩২, আইডি নং-৩১৫০৩২) তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর তার পিতা মো. তাজুল ইসলাম বাড়ীতে ঘর তোলার জন্য তার স্বামীর হাতে ৭ লাখ টাকা দেয়। ২০১১ সালে তার স্বামী বগুড়া সেনানিবাসে বদলি হয়ে যান। এরপর মোবাইলে কথা হলেও সাক্ষাত করতো না। স্বামী আজাহারুলের সাথে দেখা করার জন্য কয়েকজন সেনা কর্মকর্তার সাথেও তিনি যোগাযোগ করেন কিন্তু স্বামীর সাথে তার দেখা করা সম্ভব হয়নি।
তিনি আরো বলেন, পরবর্তীতে একটি চিঠির মাধ্যমে জানতে পারি আজাহারুল লায়লা নামের এক নারীকে বিয়ে করেছিলো। পরে বিবাহ বিচ্ছেদের কারণে তাকে ২০১০ সালের ৯ ডিসেম্বর চাকুরিচ্যুত করা হয়। বিভিন্নভাবে চেষ্টা চালিয়েও আজাহারুলের সাথে যোগাযোগ করতে ব্যর্থ হন তিনি। পরে ২০১৭ সালের ২ সেপ্টেম্বর ঈদ করার জন্য আজাহারুল তাকে বাড়ীতে যেতে বলেন। তিনি বাড়ীতে যাওয়ার পর আজাহারুল পালিয়ে যায়। কিন্তু তার বড় ভাই সেফাউল, মেঝো ভাই রেজাউল এবং তার বড় ভাবী জুলি, মেঝো ভাবী পলি, বর্তমান স্ত্রী প্রিয়া ও তার মাসহ সকলে মিলে ব্যাপক মারধর করে। স্থানীয় চেয়ারম্যান মো. কবিরুল প্রধান ও থানার ওসি তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করান। পরে আদালতে মামলা করা হলে সুচতুর আজহারুল ভুয়া পাসপোর্ট ও ভিসা দেখিয়ে জামিন পায়। বর্তমানে সে বিভিন্নভাবে হয়রানি করছে ও ২ লাখ টাকা দাবী করছে।
এমতাবস্থায় তিনি দৃষ্টান্তমূলক বিচার চেয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সহায়তা কামনা করেছেন।
Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ