মাউশির নতুন মহাপরিচালক গোলাম ফারুক

Spread the love

।। নিজস্ব প্রতিবেদক ।।

জাতীয় শিক্ষা ব্যবস্থাপনা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুককে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) মহাপরিচালক করা হয়েছে।

বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা) ক্যাডারের এই কর্মকর্তাকে মাউশি মহাপরিচালকের চলতি দায়িত্ব দিয়ে রোববার আদেশ জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

গত ৩ নভেম্বর মাউশি মহাপরিচালক অধ্যাপক মো. মাহবুবুর রহমানের মৃত্যুতে পদটি শূন্য হয়। ফুসফুসে গুরুতর অসুস্থতা নিয়ে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মাহবুবুর রহমান মৃত্যুবরণ করেন।

নতুন মহাপরিচালক নিয়োগে মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের আদেশে বলা হয়েছে, এ চলতি দায়িত্ব কোনো পদোন্নতি নয়। চলতি দায়িত্ব দেওয়ার কারণে তিনি পদোন্নতি দাবি করতে পারবেন না। সংশ্লিষ্ট পদে নিয়মিত পদোন্নতির মাধ্যমে কর্মকর্তা নিয়োগ করা হলে এ চলতি দায়িত্বের আদেশটি বাতিল বলে গণ্য হবে।

ড. গোলাম ফারুক ১৯৯৩ সালে বিসিএস) সাধারণ শিক্ষা) ক্যাডারে ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। ২০০৬ সালে তিনি প্রফেসর হিসেবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে যোগ দেন। দীর্ঘ সরকারি চাকরি জীবনে তিনি দেশের বিভিন্ন সরকারি কলেজে শিক্ষকতার পাশাপাশি লিয়েনে সৌদি আরবে কিং খালিদ বিশ্ববিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন ইংরেজির অধ্যাপক হিসেবে চাকরি করেছেন। নায়েমে যোগ দেওয়ার আগে তিনি পরিচালক হিসেবে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলে কর্মরত ছিলেন।

গোলাম ফারুক জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। পরবর্তীতে তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফলিত ভাষাবিজ্ঞান ও ইংরেজি ভাষা শিক্ষাদানের ওপর পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণির জন্য প্রকাশিত ‘ইংলিশ গ্রামার অ্যান্ড কম্পজিশন’ বইটির লেখক গোলাম ফারুক। এছাড়াও তার বেশ কয়েকটি বই প্রকাশিত হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ