অপরাধীদের বিরুদ্ধে মামলা গ্রহণ না করার অভিযোগ

Spread the love
নিজস্ব প্রতিনিধি, ঢাকা ক্রাইম ডটকম: মোহাম্মদপুর থানা এলাকার কাটাসুরের ১৫৯ জাফরাবাদেও মাওলানা মুফতি এমদাদুল হক যাকারিয়া নামের এক আলেমকে খাবারে সঙ্গে ভেজাল মিশিয়ে লেখা পড়া করতে বিগ্ন সৃষ্টি করেছে। অনুরূপ ভাবে পাঠদান কালেও বেজাল মিশিয়ে সাময়িকের জন্য অসুস্থ করে রাখে। এভাবে বাসা-বাড়ীতে ও একই সমস্যা করে রেখেছে এবং কোথাও চিকিৎসা করতে দিচ্ছে না বরং ক্ষতিকর চিকিৎসা করছে। দীর্ঘদিন যাবত মৌলিক চাহিদা ও সকল অধিকার থেকে বঞ্চিত করে রেখেছে। কোন মসজিদ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করতে দিচ্ছে না বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
২০ সেপ্টেম্বও বৃহস্পতিবার সকালে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন (ক্র্যাব) মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন মাওলানা যাকারিয়া।
আর এর পেছনে কলকাঠি নাড়ছেন আলেম পীর মাশায়েখ ও তাদের অন্ধ অনুসারীদের একটি দল। এদেরে মধ্যে উল্লেখ্য যোগ্য হলো সায়েন্সল্যাব ধানমন্ডি, এলাকার বায়তৃল মামুর জামে মসজিদের খতিব মাওলানা হাসান জামিল, মুফতি মাওলানা আব্দুল ওয়াহেদ কাশেমী, মোহতামীম জামেয়া ইমদাদীয়া মুসলিম বাজার ডি-ব্লক মিরপুর-১২, কাজী নাইম লালমাটিয়া বিবির মসজিদ সংলগ্ন কাজী অফিস মোহাম্মদপুর ঢাকা, হাফেজ মাহাদি, শারুলিয়া ডগাইর, ডমরা ঢাকা, প্রতিষ্ঠাতা ৩৬৮/২ আহম্মদ নগর আনসার ক্যাম্প মিরপুর-১, ঢাকা। মিরপুর আইডয়াল ইনস্টিটিউটের প্রধান শিক্ষক শাহাবুদ্দিন।
তিনি আরও বলেন, এসব কর্মকান্ডের প্রতিবাত করতে গিয়ে তিনি পারবিারিকভাবেও হেনস্থার শিকার হন। অপরাধীদের বিরু্দ্েধ আওয়ামী লীগের নেতাদের কাছে বিচার দিতে নিতে গেলে তাকে জোর করে ধরে পাগলা গারদে ভর্তি করান। কেন তারা এসব করছেন জানতে চাইলে মাওলানা যাকারিয়া বরেন ১নং ও ২নং আসামী গোটা পরিবারের মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে বাবা ভাই বোনদের কে ব্যবহার করছে। তিনি এ চক্রের সদস্যদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনতে এটর্নি জেনারেল সু-দৃষ্টি কামনা করছেন।
Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ