মাদক দিয়ে কাউকে অপরাধী সাজালে পুলিশের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা

Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মাদকের বিরুদ্ধে সরকারের অবস্থান জিরো টলারেন্স জানিয়ে ও পুলিশ বাহিনীকে সতর্ক করে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, নিরপরাধ কাউকে মিথ্যা মামলা বা মাদক দিয়ে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে অপরাধী বানানোর চেষ্টা করলে জড়িত পুলিশ সদস্যদেরও কোনো ছাড় দেয়া হবে না। আর মাদকের সাথে কোনো পুলিশ সদস্যের জড়িত থাকার প্রমাণ পেলে তাদের বিরুদ্ধেও কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গতকাল শনিবার সবুজবাগ থানার নতুন বহুতল ভবন নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে আয়োজিত এক সুধী সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। ডিএমপি কমিশনার বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে কোনো ধরনের সহিংসতা করার চেষ্টা করা হলে তা কঠোর হাতে দমন করা হবে। ২০১৮ সালকে ঘিরে যদি কেউ কোনো রকম ২০১৩, ১৪, ১৫, ১৬-এর মতো অরাজকতা সৃষ্টির অপচেষ্টা করে তাদের ছাড় দেবে না আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

আছাদুজ্জামান বলেন, পুলিশের তৎপরতায় বর্তমানে রাজধানীতে ছিনতাই, চাঁদাবাজির মতো অপরাধ কমে গেছে। অজ্ঞান পার্টির তৎপরতাও নেই। কেউ চাঁদাবাজি করলে, সে যেই হোক তাকে কঠোরভাবে দমন করা হবে। ডিএমপি কমিশনার আরও বলেন, ঢাকা মহানগরীর নাগরিকদের তথ্য ডিএমপি’র সদস্যরা ডাটাবেজে সংরক্ষণ করছে। আমরা নিজেদের চেষ্টায় ১৯ লাখ পরিবারের ৮০ লাখ সদস্যের তথ্য সিআইএমএস ডাটাবেজে সংরক্ষণ করেছি। জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমনে এই ডাটাবেজ অনেক কাজে আসছে। এর ফলে আমাদের অপরাধ ডিটেকশনের ক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে। ডিএমপি’র মতিঝিল বিভাগের সবুজবাগ থানার পাশে ৫০ শতক নিজস্ব জায়গায় ৮ তলা বিশিষ্ট আধুনিক সকল সুবিধা সম্বলিত থানা কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হবে। এর ফলে সবুজবাগ থানা এলাকায় পুলিশি সেবার মান অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে বলেও জানান ডিএমপি কমিশনার।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ