সদ্য প্রাপ্ত

কোস্টগার্ডের সক্ষমতা বাড়াতে জাপানের সাথে ‘বিনিময় নোট ও অনুদান চুক্তি’ স্বাক্ষর

Spread the love
নিজস্ব প্রতিবেদক:  বাংলাদেশের সমুদ্রসীমার নিরাপত্তায় নিয়োজিত কোস্টগার্ড বাহিনীর সক্ষমতা বাড়াতে জাপানের সাথে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।
সোমবার বিকেল ৩টায় রাজধানীর শেরেবাংলা নগরস্থ পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের এনইসি-২ সম্মেলন কক্ষে ‘বিনিময় নোট’ এবং ‘অনুদান চুক্তি’ স্বাক্ষরিত হয়।
‘বিনিময় নোট’ এবং অনুদান চুক্তিতে বাংলাদেশের পক্ষে স্বাক্ষর করেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক বিভাগের সচিব কাজী শফিকুল আযম এবং জাপান সরকারের পক্ষে ‘বিনিময় নোট’ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানি রাষ্ট্রদূত হিরোয়াসু ইজুমি। অন্যদিকে ‘অনুদান চুক্তি’ স্বাক্ষর করেন জাইকা’র প্রধান প্রতিনিধি হিতোসি হিরাতা।
এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জননিরাপত্তা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মো. মশিউর রহমান, কোস্টগার্ডের উপ-মহাপরিচালক কমডোর বশীর উদ্দিন আহমেদ, পরিচালক (পরিকল্পনা ও অর্জন) ক্যাপ্টেন এম মামুনূর রশীদ, পরিচালক প্রকৌশল ক্যাপ্টেন এম নুরুল ইসলাম শরীফ, প্রকল্প পরিচালক কমান্ডার এ টি এম রেজাউল হাসান ও সহকারী প্রকল্প পরিচালক লে: কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মারুফ।
‘দ্য প্রজেক্ট ফর ইমপ্রুভমেন্ট অব রেস্কিউ ক্যাপাসিটিস ইন দ্য কোস্টাল এন্ড ইনল্যান্ড ওয়াটার’ শীর্ষক প্রকল্পে জাপান সরকার ২১১ কোটি ৭৪ লাখ টাকা অনুদান সহায়তা দিচ্ছে। ওই সহায়তায় প্রকল্প অনুযায়ী আধুনিক সুবিধা সম্বলিত ৪টি ২০ মিটার বোট, ২০টি ১০ মিটার বোট এবং ৪ সেট পোর্টেবল মেরিন ওয়েল পলিউশন কন্ট্রোল যন্ত্রপাতি ৩ বছরের মধ্যে(২০১৮-২০২১ অর্থবছরের মধ্যে)বাংলাদেশ কোস্টগার্ড বাহিনীকে হস্তান্তর করা হবে।
চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক বিভাগের সচিব কাজী শফিকুল আযম বলেন, বাংলাদেশের একক বৃহত্তম দ্বিপাক্ষিক উন্নয়ন সহযোগী দেশ জাপান। বাংলাদেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়নে জাপান গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে আসছে। নমনীয় ঋণ ছাড়াও জাপান বিভিন্ন প্রকল্পে অনুদান ও কারিগরী সহায়তা দিয়ে আসছে। যার মধ্যে মানবসম্পদ উন্নয়ন, আর্থসামাজিক উন্নয়ন এবং পরিবেশ সুরক্ষা বিশেষেউল্লেখযোগ্য।
সচিব বলেন, আশা করছি যথাসময়ের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ হবে। প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা বিষয়টি গুরুত্বের সাথে নেবেন। আগামী ২০১৪ সাল পর্যন্ত ৬ টি বছর খুবই গুরুত্বপূর্ণ সময়। কারণ সরকারের ঘোষিত ভিশন অনুযায়ী সকল প্রকল্প ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন কার্যক্রমের গতি বাড়ানোর তাগিদ রয়েছে।
বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানি রাষ্ট্রদূত হিরোয়াসু ইজুমি বলেন, জাপান জানে প্রাকৃতিক দুর্যোগ কি। কারণ জাপান সব সময় প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলা করে আসছে। স্বাধীনতার পর থেকেই বাংলাদেশের সাথে জাপানের সম্পর্ক গভীর। এ সম্পর্ক সামনের দিনগুলোতে আরও তরান্বিত হবে বলেও উল্লেখ তিনি।
কোস্টগার্ডের উপ-মহাপরিচালক কমডোর বশীর উদ্দিন আহমেদ বলেন, প্রকল্পের আওতায় জননিরাপত্তা বিভাগের অধীনস্থ কোস্টগার্ডের দীর্ঘ সমুদ্র অঞ্চলে সন্ত্রাসবিরোধী কার্যক্রম প্রতিরোধ, সমুদ্রে কর্মরত জনগণ এবং বানিজ্যিক জাহাজসমূহকে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা প্রদান, সমুদ্রে সংগঠিত সকল প্রকার ক্ষতিকর কার্যক্রম রোধ এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগে উপকূলীয় অঞ্চলে ও অভ্যন্তরীন জলসীমায় ত্রাণ কার্যপরিচালনার মাধ্যমে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অবদান রাখা সম্ভব হবে।
Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ