সার্জেন্ট আহাদ পুলিশ বক্সে এসআই গুলিবিদ্ধ, তদন্ত কমিটি

Spread the love

।। নিজস্ব প্রতিবেদক ।।

রাজধানীর গুলিস্তানে পুলিশ বক্সের ভেতর এসআই ওবায়দুর রহমান (৩৪) নামে পুলিশের একজন কর্মকর্তা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এ ঘটনায় ঘটনা তদন্তে পুলিশের মতিঝিল বিভাগের এডিসিকে প্রধান করে চার সদস্যের কমিটি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে দুই হাঁটুতে গুলিবিদ্ধ অবস্থায়  তাকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলেও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ওবায়দুর সার্জেন্ট আহাদ পুলিশ বক্সের ইনচার্জ। নিজ অস্ত্রে অসতর্কতাবশত অবস্থায়, নাকি অন্য কারও অস্ত্রের গুলিতে তিনি আহত হয়েছেন তা স্পষ্ট করেনি পুলিশ।

ঢামেকে আহত ওবায়দুরের সহকর্মী এসআই সোলায়মান গাজী বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত জানি না যে, তিনি কিভাবে আহত হয়েছেন। ঘটনার পর থেকে জ্ঞান ছিল না তার। কিছুক্ষণ আগে জ্ঞান ফিরেছে। এখন তিনি আশঙ্কামুক্ত বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। কিভাবে ঘটনার সূত্রপাত তা আস্তে আস্তে জানা যাবে।

ঢামেকের জরুরি বিভাগের আবাসিক সার্জন ডা. আলাউদ্দিন জানান, কয়েকজন পুলিশ সদস্য দুই পায়ে গুলিবিদ্ধ অব¯’ায় তাকে উদ্ধার করে ঢামেকে নিয়ে আসেন। ওই পুলিশ কর্মকর্তার পায়ে গুলির চিহ্ন দেখেছি। এক্সরে করতে বলা হয়েছে।

জানা গেছে, পেট্রোল ইন্সপেক্টর (পিআই) সাইফুল ইসলাম সার্জেন্ট আহাদ পুলিশ বক্সের দোতালায় বসেন। এসআই ওবায়দুর বসেন নিচতলায়। গুলির ঘটনাটি ঘটেছে মতিঝিল জোনের সহকারী কমিশনার (পেট্রোল) ইলিয়াছ হোসেনের নিচতলার কক্ষে। ওই সময় পুলিশের তিন কর্মকর্তাই ওই কক্ষে ছিলেন।

সহকারী কমিশনার ইলিয়াছ হোসেনে বলেন, তারা তিনজন তার কক্ষে বসে মিটিং করছিলেন। তা শেষ করে পেট্রোল ইন্সপেক্টর সাইফুল এবং বক্সের ইনচার্জ এসআই ওবায়দুর উঠে যাচ্ছিলেন। ওই সময় অসাবধানতায় সাইফুলের পিস্তল থেকে গুলি বেরিয়ে তা ওবায়দুরের হাঁটুতে লাগে। এক পায়ে গুলি লাগার পর তা ভেদ করে অন্য পায়ে সামান্য বিদ্ধ হয়।

পুলিশের মতিঝিল বিভাগের এডিসি শিবলি নোমান বলেন, তারা ধারণা করছেন অস্ত্র পরিস্কার করার সময় অসাবধানতায় ওই গুলির ঘটনা ঘটেছে। তবে পুরো বিষয়টি জানতে চার সদস্যদের কমিটি করা হয়েছে। গুলিবিদ্ধ ওবায়দুর শঙ্কামুক্ত।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ