basic-bank

পুলিশ ফাঁড়িতে বিয়ে হল তাছলিমার!

সাদুল্লাপুর, গাইবান্ধা প্রতিনিধি সা: বেরসিক পুলিশ এবার রসিকতা দেখালেন, বেধে দিলেন প্রেমিক যুগলের প্রেমের বন্ধন। সার্থক করলো তাছলিমার প্রেম। গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে আটক কৃত প্রেমিক যুগলের আজ রবিবার বিকালে বিয়ে সম্পন্ন হলো। মোবাইল প্রেমের সূত্র ধরে পীরগঞ্জের পান বাজার একবারপুর গ্রামের চান মিয়ার কন্যা তাছলিমা আক্তার ওরফে আকলিমা (২০) প্রেমের টানে ছুটে আসে সাদুল্লাপুর উপজেলার ধাপেরহাট আলীনগর গ্রামের ফেলান মিয়ার ছেলে প্রেমিক শফিকুল ইসলাম (৩৫) এর বাড়ীতে।

প্রেমিকার অবস্থান টের পেয়ে প্রেমিক শনিবার সন্ধায় ঢাকায় পালিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাসে ওঠার জন্য ধাপেরহাট বন্দরে আসে। এসময় কতিপয় যুবক প্রেমিক শফিকুলকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এ,এস,আই মনিরুজ্জামান মনির প্রেমিক শফিকুলকে আটক করে পুলিশ হেফাজতে নেয়।

রাত ২টার দিকে প্রেমিকা তাছলিমা থানায় ছুটে এসে শফিকুল কে বিয়ে করে তাদের প্রেমকে স্বার্থক করার জন্য অনুরোধ করে। এক পর্যায়ে পুলিশের মধ্যস্ততায় রাত ৪ টার দিকে ছেলে মেয়ে উভয়ের অভিভাবকগণ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে এসে তাদের বিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। যেমন কথা তেমন কাজ শনিবার ভোর রাতে স্থানীয় কাজীর দ্বারা ২ লক্ষ ২০ হাজার টাকা দেন মোহরানা ধার্য্য সাপেক্ষে বিবাহ রেজিষ্ট্রি করেন এবং রবিবার বিকালে আনুষ্ঠানিক ভাবে মৌলভীর দ্বারা বিবাহ সুসম্পন্ন করা হয়।

ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ (ওসি তদন্ত) মতিউর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান ছেলে মেয়ের অভিভাবকের সম্মতি ক্রমে প্রেমিক যুগলের বিয়ে সু-সম্পন্ন করা হয়েছে এবং বিবাহ উপলক্ষে গ্রামের নিয়ম রীতি মোতাবেক উপস্থিত সবাইকে মিষ্টি মুখ করানো হয়।

 

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।