মিরপুরে জঙ্গী হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে র‍্যাব ডিজি’র আর্থিক অনুদান

Spread the love

মো. মাহমুদ হোসাইন, ঢাকা ক্রাইম:  মিরপুরের বর্ধনবাড়ি এলাকার ‘কমল প্রভা’ নামের বাড়িতে জঙ্গিদের আত্মঘাতী বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত ভবনটির চতুর্থ তলার ভাড়াটিয়া দলিল উদ্দিনের পরিবারকে আর্থিক অনুদান দিয়েছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটলিয়ন (র‍্যাব)।

আজ মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭) র‍্যাব সদর দপ্তরে সংস্থাটির মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে ১ লাখ টাকার আর্থিক অনুদান প্রদান করেন। র‍্যাবের লিগ্যাল এন্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, বর্ধন বাড়ি এলাকার ওই বাড়িটির ৫ম তলায় গত ৫ সেপ্টেম্বর জঙ্গি আব্দুল্লাহ আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটায়। ভেতরে রাসায়নিক পদার্থ থাকায় বিস্ফোরণে ফ্ল্যাটটিতে আগুন ধরে যায়। পরে সেখান থেকে সাতটি পুড়ে যাওয়া লাশ উদ্ধার করা হয়, যা কঙ্কাল হয়ে গেছে।
মুফতি মাহমুদ আরো বলেন, ওই বিস্ফোরণে ভবনটির ৪র্থ তলার ফ্ল্যাটও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই ফ্লাটের বাসিন্দাদের জন্য ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করে র‍্যাব। মঙ্গলবার দুপুরে র‍্যাবের ডিজি ওই পরিবারকে ১ লাখ টাকার আর্থিক অনুদান প্রদান করেন।

প্রসঙ্গত, গত ৪ সেপ্টেম্বর সোমবার রাতে টাঙ্গাইলে জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালিয়ে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রসহ দুজনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে জঙ্গি আব্দুল্লাহকে ধরতে মিরপুরের বর্ধন বাড়ির ‘কমল প্রভা’ নামের বাড়িতে অভিযান চালায় র‍্যাব।

পরদিন ওই বাড়ির ৫ম তলার ফ্ল্যাটে আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গি আব্দুল্লাহ। ফ্ল্যাটের তিনটি রুম থেকে সাতজনের পুড়ে কঙ্কাল হয়ে যাওয়া লাশ উদ্ধার করা হয়।
নিহতরা হলেন— জঙ্গি আব্দুল্লাহ (৪৫) তার দুই স্ত্রী নাসরিন (৩৫) ও ফাতেমা (২৫), বড় ছেলে ওমর (১০), ছোট ছেলে ওসামা (২) এবং দুই সহযোগী।

র‍্যাব জানায়, ২০০৫ সালে জেএমবির সঙ্গে যুক্ত হয় জঙ্গি আবদুল্লাহ। ২০১৩ সালে সে জেএমবির সারোয়ার-তামিম গ্রুপে যুক্ত হয়। সংস্থাটির মতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানে নিহত জঙ্গিনেতা তামিম চৌধুরী ও সারোয়ার জাহানসহ অনেকেই এক সময় আব্দুল্লাহর বাড়িতে অবস্থান করেছেন।

র‍্যাবের ডিজি বেনজীর আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, জঙ্গি আব্দুল্লাহ জেএমবির আশ্রয়-প্রশ্রয় এবং অর্থদাতা ছিলেন। গত বছর সারোয়ার তামিম গ্রুপের এক সদস্যকে গ্রেফতারের পর আমরা আব্দুল্লাহর সম্পর্কে তথ্য পাই। তখন থেকেই আমরা তাকে খুঁজছিলাম, তবে তার বাসস্থান সম্পর্কে সঠিক তথ্য পাইনি।

তিনি আরও বলেন, আব্দুল্লাহর আবাসস্থলটি জঙ্গিদের ট্রেনিং সেন্টার হিসেবেও ব্যবহৃত হতো। এ বাড়িতে তামিম, সারোয়ার, সোহেল মাহফুজসহ অনেক জেএমবি নেতারা ঘুমিয়েছে। আমরা তার এড্রেস জানতাম না কিন্তু এ তথ্যগুলো জানতাম।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ