জনগণের আস্থা অর্জন করছে পুলিশ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

Spread the love

মো. মাহমুদ হোসাইন, ঢাকা ক্রাইম ডট কম: বাংলাদেশ পুলিশ জনগণের আস্থা অর্জন করতে পেরেছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

 

আজ শনিবার (২৮ অক্টোবর ২০১৭) দুপুরে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে (আইডিইবি) আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এ কথা বলেন।

ARE YOU LOOKING FOR YOUR OWN PIECE OF PARADISE?

Prominent Living Ltd is a premier licensed real estate company in Bangladesh with its own unique identity.

Ongoing Project | Prominent Tower
Location: Sector 3, Uttara, Dhaka, Bangladesh.
Type: Commercial Building | 01716 638059, 01726 265195

 

‘কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০১৭’ উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) রমনা বিভাগ।
এর আগে সকাল ১০টার টায় ডিএমপি সদর দপ্তরের সামনে শান্তির প্রতীক কবুতর উড়িয়ে অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক ।


পুলিশিং ডে-২০১৭ উপলক্ষে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা যদি ১০ বছর পেছনে যাই, তাহলে তখনকার পুলিশ আর এখনকার পুলিশ এক নয়। বর্তমানে পুলিশ জনগণের আস্থা অর্জন করতে পেরেছে। জনগণের সহযোগিতায় মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গি দমনে সফলতা অর্জন করতে পেরেছে। আজকের পুলিশ বাংলাদেশের হৃদয় জয় করে নিয়েছে।

 

মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন বলেন, এলাকায় যে সামাজিক ব্যবস্থা ছিল, সেটা কমে যাওয়ায় সন্ত্রাস বাড়ছে। সে জন্য আইজিপি কমিউনিটি পুলিশিং জোরদার ও শক্তিশালী করার উদ্যোগ নিয়েছেন। কমিউনিটি পুলিশ জোরদার হলে সবাইকে নিরাপত্তা দেওয়া যাবে। ছোট ছোট বিরোধ উৎসের সময়ই শেষ করে দিতে পারলে থানায় আর মামলা করতে হবে না। এটাও কমিউনিটি পুলিশিংয়ের কাজ। কারণ, থানায় একটা মামলা হলে বিচার পেতে কয়েক বছর সময় লেগে যায়।

দুই দফায় ইতিমধ্যে ৮০ হাজার পুলিশ নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, পুলিশকে অনেক সুবিধা দিতে পারিনা । এ বছর যথেষ্ট পরিমাণ গাড়ি ডিএমপির জন্য কেনা হয়েছে বলেও জানান তিনি। পুলিশের অন্য সমস্যাগুলো দূর করার জন্য কাজ চলছে বলে জানান।

 

পুলিশের বিফলতা নেই বলা যাবে না মন্তব্য করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তবে আমরা যে পথে হাঁটছি, তাতে নিরাপদ বাংলাদেশ গঠনের পথেই যাচ্ছি। অবশ্যই আমরা গন্তব্যে পৌঁছাবো।

 

বিভিন্ন এলাকায় কর্তাব্যক্তিরা যে কাজ করতেন এখন কমিউনিটি পুলিশ ধারাবাহিকভাবে সে কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কমিউনিটি পুলিশ পাড়া-মহল্লায় উঠান বৈঠকের মাধ্যমে ছোটখাট ঝামেলা বা মতবিরোধ মীমাংসা করে দিচ্ছে।

 

দেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য সুরক্ষার বিকল্প নেই, আমরা সে কাজটিই করে যাচ্ছি। জনগণকে যতো কাছে নিতে পারবো, আমরা ততোই সফল হবো। জননিরাপত্তা বিধানে কমিউনিটি পুলিশিং গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

 

এ সময় জনগণকেও স্বতঃস্ফূর্তভাবে পুলিশকে সহযোগিতায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানান মন্ত্রী।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক বলেন, ব্যাপক জনগোষ্ঠীকে এ আন্দোলনে সংযুক্ত করা এবং এর ভালো দিকগুলো মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়াই কমিউনিটি পুলিশিং দিবসের উদ্দেশ্য।

 

পুলিশকে দূরে সরিয়ে রাখলে মাঝখানে কিছু দালাল সৃষ্টি হয়, কিন্তু সরাসরি সম্পৃক্ত থাকলে দালালরা এ সুযোগ নিতে পারে না বলেও জানান আইজিপি।
ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা বিভাগ আয়োজিত কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০১৭ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন শেষে ডিএমপির সদর দপ্তর থেকে একটি বর্ণাঢ্য র্যালী বের করা হয়। র্যালিটি ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট কাকরাইল গিয়ে শেষ হয়।

র‍্যালী শেষে ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিতব্য আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল ও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক।

এ ছাড়াও কমিউনিটি পুলিশিং-ডে উপলক্ষে অনুষ্ঠানে থাকবে রক্তদান কর্মসূচি। এবছরের ন্যায় প্রতিবছর অক্টোবর মাসের শেষ শনিবার কমিউনিটি পুলিশিং ডে হিসেবে বাংলাদেশের সকল পুলিশ ইউনিটে পালন করা হবে। কমিউনিটি পুলিশিং ডে উপলক্ষে পুলিশের আট বিভাগ থেকে আটজন সদস্যকে ও বিট পুলিশিংয়ের কর্মকর্তাদের পুরস্কৃত করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ