“বাংলাদেশের শ্রমিক ও রোবট ভাবনা”

Spread the love

মোঃ সাইফুল ইসলাম; গত বেশ কিছুদিন যাবৎ একটি রোবট নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সেল্ফি দেখছি অনেক ভাই বোনদের । সেই সাথে পত্র পত্রিকায় খবরও প্রকাশিত হয়েছে একটি রেস্তরাঁয় টেবিল ফুড সার্ভিসের কাজে ব্যবহার হচ্ছে এই রোবটি। এটা অবশ্যই আমাদের দেশের জন্য নতুন তাই সবাই উৎসাহ নিয়ে দেখতে যাচ্ছে সেলফি তুলছে ফেজবুকে স্যাটাস দিচ্ছে তাতে দোষের কিছু নেই।

কিন্তু একটা বিষয় ভেবে দেখা দরকার এই রোবটের জায়গায় অন্য রেস্তরাঁয় সার্ভ করছেন একজন মানুষ এবং ঐ মানুষটার আয়ে চলছে একটি পরিবার । আমাদের দেশের প্রধান সম্পদ গুলোর মধ্যে একটি হলো মানব সম্পদ যা আমরা সঠিক ভাবে কাজে লাগিয়ে মানব সমস্যাকে সম্পদে পরিণত করতে পারিনি আজও। যতজন নাগরিক বিদেশ পাড়ি দিয়েছেন তার অধিকাংশ নিজ/ব্যক্তি উদ্যোগে এবং তাদেরকে পোহাতে হয়েছে দেশী বিদেশী অনেক যন্ত্রণা। বছর শেষে জিডিপির হিসেব কষে তৃপ্তির ঢেকুর তোলেন সরকার।

সংসদে দাঁড়িয়ে জিডিপির কত শতাংশ রেমিটেন্স এর মাধ্যমে পূরণ হয়েছে তা হাসি মুখে উপস্থাপনা করেন মাননীয় অর্থমন্ত্রী । আর এর কৃতিত্ব নেন আমাদের সরকার। যারা রক্ত পানি করা টাকা দেশে পাঠিয়ে আমাদের অর্থনীতিতে বিরাট ভুমিকা রাখছেন তাঁদের খোঁজ আমরা কতজনে রাখি। মাঝে মাঝে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রবাসীদের দূরদশার ছবি/ভিডিও চোখে পরে। আমরা শুধু তাকিয়ে দেখি কষ্ট পাই কিন্তু কিছু করতে পারিনা। যাদের করার কিছু আছে অর্থাৎ বিদেশে আমাদের দূতাবাস।

কিন্তু অভিযোগ আছে দূতাবাসগুলো প্রায় অধিকাংশ সময় প্রবাসী শ্রমিক ভাইদের সহযোগিতা করে না । ছোট খাট শিল্প কারখানার ব্যবসা এবং সংবাদ কর্মী হওয়ার কারনে বিভিন্ন পেশার মানুষের সাথে ওঠাবসা হয় দেশে বিদেশে। যেখানেই আমার দেশের মানুষের সাথে কথা হয়েছে একটি উত্তরই পেয়েছি এদেশের মানুষ কাজ করে খেতে চায়, আত্ননিরভরশীল হতে চায়। আরও মনে রাখতে হবে আমাদের দেশের একজন মানুষের রোজগার মানেই হচ্ছে সর্বনিম্ন ৪ সদস্যের পরিবারের ভরণপোষণ । এবার ফিরে আসি রোবট প্রসঙ্গে।

আমি প্রযুক্তি ব্যবহারের পক্ষে কিন্তু আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে প্রযুক্তি যদি অধিক সংখ্যক জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থান কেড়ে নেয় তবে সেইসব প্রযুক্তি আমাদের দেশে ব্যবহারের পক্ষে আমি নই। এই একটি রেস্তরাঁর ফুড সরবরাহ কাজে রোবট ব্যবহার রেস্তরাঁটির একটি চমক কিংবা বলা যেতে পারে ব্যবসায়ীক একটি কৌশল। বাংলাদেশে উন্নত /অনুন্নত, দেশী/বিদেশী কতগুলো রেস্তরাঁ আছে এর কোন সঠিক পরিসংখ্যান কোন তথ্যসূত্রে পাওয়া যায়নি। ধরে নেই শুধুমাত্র উন্নত রেস্তরাঁ গুলো যদি খরচ বাঁচানোর জন্য রোবট ব্যবহার শুরু করে তবে আমাদের দেশের কত হাজার লোক কর্মসংস্থান হারাবে, কত হাজার পরিবার অসহায় হয়ে পরবে।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ