জামালপুরে সরিষা ফুলের মধু সংগ্রহের মহোৎসব

Spread the love

লিয়াকত হোসাইন লায়ন, জামালপুর: জামালপুরের ৭টি উপজেলার মাঠে মাঠেই এখন নয়নাভিরাম সরিষার হলুদ ফুলের অপরুপ দৃশ্য। পুরো মাঠ যেন ঢেকে আছে অপার সুন্দর এক হলুদ গালিচায়। এদিকে সরিষা ফুলের মধু সংগ্রহে এসব জমির পাশে পোষা মৌমাছির শতশত বাক্স নিয়ে হাজির হয়েছেন মৌয়ালরা। ওইসব বাক্স থেকে হাজার হাজার মৌমাছি উড়ে গিয়ে মধু সংগ্রহে ঘুরে বেড়াচ্ছে সরিষা ফুলের মাঠে। যেন মধু সংগ্রহে পেশাদার মৌয়ালদের মহোৎসব চলছে। এ অপরুপ দৃশ্যে মুগ্ধ হচ্ছে স্থানীয় শিশু-কিশোর থেকে প্রকৃতি প্রেমী প্রতিটি মানুষ।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, ইসলামপুর উপজেলার চরপুটিমারী, গাইবান্ধা, চরগোয়ালিনী, গোয়ালেরচর ও পলবান্ধা ইউনিয়নের বেশীরভাগ ফসলি জমিতে সরিষার আবাদ করা হয়েছে। এসব জমিতে সরিষার ফুল ফুটতে শুরু করেছে। আর ওইসব ফুলের মধু আহরনে নেমেছেন পেশাদার মৌয়ালরা। মৌয়ালদের বাক্স থেকে দলে দলে উড়ে যাচ্ছে পোষা মৌমাছি। ঘুরে বেড়াচ্ছে এ ফুল থেকে ও ফুলে। আর সংগ্রহ করছে মধু। মুখ ভর্তি মধু সংগ্রহ করে মৌমাছিরা ফিরে যাচ্ছে মৌয়ালদের বাক্সে রাখা মৌচাকে। সেখানে সংগৃহীত মধু জমা করে আবার ফিরে আসছে সরিষার জমিতে। এভাবে দিনব্যাপী মৌমাছিরা যেমন মধু সংগ্রহ করে, আবার বিভিন্ন ফুলে ফুলে ঘুরে বেড়াতে গিয়ে পুরো জমির পরাগায়নেও সহায়তা করে। এ মৌসুমে মৌয়ালরা পোষা মৌমাছি দিয়ে প্রচুর মধু উৎপাদন করে যেমন লাভবান হচ্ছেন ঠিক তেমনি মৌমাছির ব্যাপক পরাগায়নে সরিষার বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভাবনায় চাষীরাও বাড়তি আয়ের আশা করছেন।

ইসলামপুরের চরপুটিমারী ইউনিয়নের চিনারচর গ্রামে পোষা মৌমাছি দিয়ে মধু সংগ্রহে আসা সাতক্ষিরার পেশাদার মৌয়াল আমিরুল ইসলাম জানান, তিনি প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও পোষা মৌমাছির ১৫০টি বাক্স নিয়ে সরিষার ফুলের মধু সংগ্রহে ইসলামপুর এসেছেন। তিনি এবছর প্রতি সপ্তাহে গড়ে ৮মন মধু সংগ্রহ করতে পারছেন। একই উপজেলার চরপুটিমারী ইউনিয়নের চিনারচরচর এলাকায় সরিষার ফুলের মধু সংগ্রহে আসা সাতক্ষিরার পেশাদার মৌয়াল মো. ই¯্রাফিল হোসেন জানান, তিনি পনের দিন ধরে পোষা মৌমাছির ১২০টি বাক্স নিয়ে সরিষার ফুলের মধু সংগ্রহ করছেন। এখানে সরিষার ফুল থেকে মৌমাছি দিয়ে মধু সংগ্রহ করে তিনি যেমন লাভবান হচ্ছেন ঠিক তেমনি মৌমাছির ব্যাপক পরাগায়নে সরিষার বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভাবনায় স্থানীয় চাষীরাও খুশি হচ্ছেন। ওইসব মৌয়ালদের সাথে কথা বলে জানাগেছে, এবছর সাতক্ষিরা ও মধুপুরসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে শতাধিক পেশাদার মৌয়াল জামালপুরের ৭টি উপজেলায় সরিষা ফুল থেকে মধু সংগ্রহের কাজ করছেন। এসব মধু বিক্রি করে স্বাবলম্বী হচ্ছেন মৌয়ালরা এবং মধ্যস্বত্তভোগীরা মধু বিদেশে রপ্তানি করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রাও অর্জন করছেন।

জামালপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কার্যালয় সুত্রে জানাগেছে, জামালপুরের ৭টি উপজেলায় এবছর রবি মৌসুমে সাত হাজার ৩৮৫ হেক্টর জমিতে সরিষার চাষ করা হয়েছে। আর উৎপাদন হতে পারে ৮ হাজার ৭০০ মেট্রিক টন সরিষা। রোপা আমন কেটে বোরো ধান রোপনের আগে একটি বাড়তি অর্থকরি ফসল হিসেবে সরিষার আবাদ করে কৃষকরা বেশ লাভবান হচ্ছেন। আবার ওইসব সরিষার ফুল থেকে পোষা মৌমাছি দিয়ে মধু সংগ্রহে লাভবান হচ্ছেন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের পেশাদার মৌয়ালরা।

জামালপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা জানান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর লাভজনক শস্যবিন্যাস পদ্ধতিতে একই জমিতে বছরে অধিকবার ফসল ফলানোর কৌশল উদ্ভাবন করেছেন। এসব উদ্ভাবনী কৌশলে কৃষকদেরকে উদ্বুদ্ধ করানোর ফলে এখন বহু জমিতে বাড়তি ফসল হিসেবে সরিষার আবাদ হচ্ছে। যে কারণে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সরিষার আবাদ অনেকটাই বেড়ে গেছে।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ