basic-bank

সরকারি কর্মকর্তারাও এখন নিরাপদ নন: ফখরুল

“আওয়ামী লীগ সরকারের হাতে এখন সরকারি কর্মকর্তারাও নিরাপদ নন। নেতাদের কথামতো না চললে কিংবা কথা না শুনলে এখন কর্মকর্তাদের হাজতবাস করতে হয়। যার বড় প্রমাণ এখনকার ইউএনও গাজী তারিক সালমন। এই ঘটনাই বলে দিচ্ছে সরকারের একদলীয় শাসন ব্যবস্থা। এর মাধ্যমে বাকশালের পানে ফিরে যাওয়া। ”

আজ মঙ্গলবার সকালে বরিশাল জেলা ও মহানগর বিএনপির উদ্যোগে বিএনপির সদস্য সংগ্রহ ও নবায়নের দুই দিনের কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সকাল ১১টায় বরিশাল নগরীর অশ্বিনী কুমার হলে বিএনপির সদস্য সংগ্রহ ও নবায়নের অনুষ্ঠান শুরু হয়। আগামীকাল বুধবার শেষ হচ্ছে এ কর্মসূচি। অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের রেশ ধরে ফখরুল বলেন, “বেগম খালেদা জিয়া বিদেশে গেছেন চিকিৎসার জন্য, অথচ তিনি (কাদের) বলছেন পালিয়ে গেছেন। ” তিনি ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ্য আরো বলেন, “বিএনপির নেতাকর্মীরা পালায় না। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় আওয়ামী লীগের নেতারা কেউ পাকিস্তানে কেউ ভারতে পালিয়েছেন। আমাদের দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান দেশে থেকেই যুদ্ধ করেছেন। এক এগারোর সময় আওয়ামী লীগের নেতারা আমেরিকায় পালিয়ে গিয়ে সরকারকে বৈধতা দেবেন মর্মে দেশে ফিরে ক্ষমতার স্বাদ ভোগ করছেন।

আগামী জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গ তুলে ফখরুল বলেন, “নিরপেক্ষ ছায়া সরকার ও সকল দলের অংশগ্রহণ ব্যতীত আওয়ামী লীগ সকারের অধীনে আর কোনও নির্বাচন হবে না। আওয়ামী লীগ সরকার চাচ্ছে সংসদ বহাল রেখে ৫ জানুয়ারির ন্যায় আরেকটি ভোটারবিহীন নির্বাচন করতে। এবার সেই সুযোগ আর দেওয়া হবে না। বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে ৩৪টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ চাচ্ছে বিএনপির নেতাকর্মীদের মামলা দিয়ে আদালতের বারান্দায় রেখে নির্বাচনের প্রচারণা থেকে বাইরে রাখতে। এবার আর সরকারকে সেই সুযোগ দেওয়া হবে না। ”

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও বরিশাল মহনগর বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ারের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সহসভাপতি বেগম সেলিমা রহমান ও সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস আক্তার জাহান শিরিন। মহাসচিবের দুই দিনের কর্মসূচির শেষ দিন আগামীকাল বুধবার জেলা দক্ষিণ বিএনপির অনুরূপ কর্মসূচি পালিত হবে বলে দলীয় সূত্র জানিয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।