বাড্ডা থেকে জেএম‌বি সা‌রোয়ার-তা‌মিম গ্রু‌পের ৩ সদস্য গ্রেফতার

Spread the love

মো. মাহমুদ হোসাইন: রাজধানীর বাড্ডা থে‌কে  জেএম‌বি সা‌রোয়ার-তা‌মিম গ্রু‌পের ৩ সদস্য গ্রেফতার। এরা সংগঠ‌নের প‌ক্ষে কর্মী সংগ্রহ, অর্থ সংগ্রহ, জিহা‌দে উদ্বুদ্ধকরণ ও হিজর‌তের পস্তু‌তিমূলক পর্ব সমূহ সম্পন্ন করার দায়ি‌ত্বে নি‌য়ো‌জিত ছিল।

গতকাল বুধবার দুপুর দেড়টার কাওরান বাজার র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে র‍্যাব-৩-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তুহিন মোহাম্মদ এ কথা ব‌লেন।

ARE YOU LOOKING FOR YOUR OWN PIECE OF PARADISE?

Prominent Living Ltd is a premier licensed real estate company in Bangladesh with its own unique identity.

Ongoing Project | Prominent Tower
Location: Sector 3, Uttara, Dhaka, Bangladesh.
Type: Commercial Building | 01716 638059, 01726 265195

তি‌নি ব‌লেন, গ্রেফতাররা ইমাম মে‌হেদী না‌মে একজন বড় ভাই‌য়ের তত্ত্বাবধা‌নে জেএম‌বির সা‌রোয়ার-তা‌মিম গ্রু‌পের পুনর্গঠ‌নের কাজে নি‌য়ো‌জিত ছিল।

তিনি আরো বলেন, গত ১০ এপ্রিল র‌্যাবের একটি দল মোহাম্মদপুর থানাধীন নূরজাহান রোডে অভিযান চালিয়ে ফাতেমা আক্তার রুমা (২০) এবং উত্তরা এলাকায় অভিযান চালিয়ে মো. জাইদুল হক জিহান (২৪) নামে জেএমবির সারোয়ার-তামিম গ্রুপের ২ জন সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করে। তখন থেকেই এ সংগঠনের অন্য সদস্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত ছিল।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মুশফিকুল হক জানায়, বিগত ২০১২ সাল থেকে সে জঞও (জবঃঁৎহ ঃড় ওংষধস) নামক একটি সংগঠনের সাথে জড়িত ছিল। সংগঠনটি উগ্র মতাদর্শে উদ্বুদ্ধ ছিল। এই সংগঠনের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক মামুনুর রশিদ ওরফে কাজল ওরফে ইবনে আজিজুর রহমান প্রথমে তাকে জেএমবির সারোয়ার-তামিম গ্রুপের আদর্শে অনুপ্রাণিত করে। উল্লেখ্য যে, মামুনুর রশিদ ওরফে কাজল গত ৬/৭ মাস যাবৎ নিজ এলাকা সিলেট হতে নিখোঁজ রয়েছে।

পরবর্তীতে মুশফিকুল মহাখালীতে একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার জন্য ঢাকায় আসলে ইমাম মেহেদী, বিপ্লব হোসেন কামাল ওরফে সুন্নাহ কামাল ওরফে মাওলানা কামাল হোসেন বিপ্লবী, তাওহীদ সহ কয়েকজন তাকে মহাখালী কেন্দ্রিক সারোয়ার-তামিম গ্রুপ এর সক্রিয় সদস্য হিসাবে প্রথমে অণুবাদক হিসাবে নিয়োজিত করে। মুশফিকুল জানায় যে, সাজিদ হাসান, তৌহিদ এবং পূর্বে গত ১০ এপ্রিল র্যা ব গ্রেফতারকৃত সারোয়ার-তামিম গ্রুপের সক্রিয় সদস্য জাইদুল হক জিহান এবং ২০১৬ সালে গাজীপুরে জঙ্গি অভিযানে নিহত জঙ্গি অপুসহ কয়েকজন মিলে তারা ঢাকাস্থ ফার্মগেইটের একটি বাসায় নিয়মিত জঙ্গিবাদের গোপন মিটিং এ মিলিত হত। মুশফিকুল মোবাইলে বিভিন্ন সাংকেতিক বার্তা সংশ্লিষ্ট এ্যাপস্ এর মাধ্যমে জঙ্গি সংশ্লিষ্ট বার্তা আদান প্রদান, জঙ্গি সংশ্লিষ্ট ভিডিও, বিভিন্ন আর্টিকেলের চউঋ কপি এবং জঙ্গি সংশ্লিষ্ট ফান্ডে অর্থায়নে সরাসরি জড়িত ছিলেন। সে সর্বদাই বিভিন্ন সাংকেতিক বার্তার মাধ্যমে অত্যন্ত গোপনীয়ভাবে জঙ্গি সংগঠনের অর্থায়নসহ সংগঠকদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখত। এ পর্যন্ত তার ভাষ্যমতে সে লক্ষাধিক টাকা জঙ্গি খাতে অর্থায়ন করেছে।

অপরদিকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মামুনুর রশিদ ওরফে আবু ইউশা জানায় যে, সে ইমাম মেহেদী এবং তাওহিদের মাধ্যমে জেএমবির সারোয়ার-তামিম গ্রুপের একজন সক্রিয় সদস্য হিসাবে জঙ্গিবাদী কার্যক্রমে জড়িয়ে পড়ে। আরবী ভাষায় দক্ষতা থাকায় সে সাংকেতিক বার্তা সংশ্লিষ্ট এ্যাপস্ যেমন টেলিগ্রাম ইত্যাদির মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের জঙ্গি সংশ্লিষ্ট আর্টিকেল সংগ্রহ করে অনুবাদের মাধ্যমে জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ করার কাজে নিয়োজিত ছিল। এছাড়াও জঙ্গি সংশ্লিষ্ট কাজে ব্যবহার করার জন্য ইমাম মেহেদীকে বেশকিছু ভূয়া রেজিষ্ট্রেশনকৃত সীম প্রদান করে এবং ইন্টারনেট হতে জঙ্গি সংশ্লিষ্ট ভিডিও সংগ্রহ ও সরবরাহ করত।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বিপ্লব হোসেন কামাল ওরফে সুন্নাহ কামাল জানায় যে, সে ইমাম মেহেদী, সাজিদ, তাওহিদ এবং অন্যান্যদের মাধ্যমে হলিআর্টিজান ঘটনার পূর্ব থেকেই জেএমবির সারোয়ার-তামিম গ্রুপের সদস্য হিসাবে জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধকরণ ও অংশগ্রনের জন্য কর্মী সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত ছিল। একটি আইটি কোম্পানীতে চাকুরীর সুবাদে জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ করার উদ্দেশ্যে বিভিন্ন ধরনের জঙ্গি সংশ্লিষ্ট ভিডিও, চউঋ বই, আর্টিকেল ইন্টারনেট হতে সংগ্রহ ও সরবরাহের কাজে নিয়োজিত ছিল। আরবী ভাষায় দক্ষতা থাকার কারনে সে জঙ্গি সংশ্লিষ্ট আর্টিকেল বাংলায় অনুবাদের কাজে নিয়োজিত ছিল। সে দেশীও প্রবাসীদের নিকট থেকে অর্থ সংগ্রহ করে সংগঠনকে পূর্ণগঠিত করার চেষ্টা করছিল বলে জানা যায়। এছাড়াও জানা যায় যে, পরিবারের কাউকে কোন কিছু না বলে গত বেশ কিছুদিন আগে সে বাড়ী থেকে বের হয়ে যায়। ধারনা করা হয় নাশকতা করার উদ্দেশ্যে সে বাড়ী থেকে বের হয়ে যায় । তাদের জঙ্গি কার্যক্রমের অংশ হিসাবে এই গোপন বৈঠকে মিলিত হওয়ার কথা ছিল।

তাদের সহযোগীদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত আছেও বলে ওই র‍্যাব কর্মকর্তা বলেন।

এরআগে বুধবার সকা‌লে রাজধানীর বাড্ডার আফতাবনগর এলাকায় গোপন বৈঠক করার প্রস্তু‌তিকা‌লে মুশ‌ফিকুল হক (২৪), বিপ্লব হো‌সেন ওর‌ফে সুন্নাহ কামাল ওর‌ফে মাওলানা কামাল হো‌সেন বিপ্লবী (২৬) ও মামুনুর র‌শিদ ওর‌ফে আবু ইউশাকে (২৬)‌ গ্রেফতার ক‌রে র‌্যাব। র‌্যাবের দাবি তারা জেএম‌বির সারোয়ার-তামিম গ্রুপের সদস্য।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ